রেজি: কেএন ৭৫52 তম বর্ষ বাংলা December 4, 2022 ইং

করোনা পরিস্থিতি


Warning: array_filter() expects parameter 1 to be array, string given in /www/wwwroot/dainikjanmobhumi.com/wp-content/plugins/corona/corona.php on line 322
বাংলাদেশবিশ্বকরোনা মানচিত্রদেশে-দেশে

বাংলাদেশ

Confirmed
0
Deaths
0
Recovered
0
Active
0
Last updated: December 4, 2022 - 2:55 pm (+06:00)

বিশ্ব

Confirmed
0
Deaths
0
Recovered
0
Active
0
Last updated: December 4, 2022 - 2:55 pm (+06:00)
Last updated: December 4, 2022 - 2:55 pm (+06:00)
1-9 10-99 100-999 1,000-9,999 10,000+

Global

  • Confirmed
    Deaths
    Recovered

    • Warning: Invalid argument supplied for foreach() in /www/wwwroot/dainikjanmobhumi.com/wp-content/plugins/corona/templates/corona-list.php on line 26
    Total
    0
    0
    0
    Last updated: December 4, 2022 - 2:55 pm (+06:00)

    চিত্রনায়িকা মৌসুমী নিরাপত্তার অভাবে তালারগ্রামের বাড়িতে আসতে চান না!

    সম্পাদক

    গাজী জাহিদুর রহমান, তালা

    নিরাপত্তার অভাবে গ্রামের বাড়িতে আসতে চান না তালার মেয়ে চিত্রনায়িকা আরিফা পারভিন জামান ওরফে মৌসুমী। মৌসুমীর আদি বাড়ি সাতক্ষীরার তালা উপজেলার তৈলকুপী গ্রামে। তার পিতার নাম মৃত নাজমুজ্জামান বিশ্বাস। তিন বোনের মধ্যে সবার বড় মৌসুমী। অপর দুই বোনের একজন ইরিন জামান (মেজ) ছোট বোন স্নিগ্ধা জামান। তাদের কোনো ভাই নেই। বর্তমানে মেজ ছোট বোন জামাইসহ যুক্তরাষ্ট্রের বাসিন্দা।

    প্রিয়দর্শিনী চিত্রনায়িকার ছয় চাচা চার ফুফু। চাচাদের মধ্যে জীবিত আছেন ছোট চাচা শহিদুজ্জামান। তিনি ঢাকার উত্তরায় ব্যবসা করেন। বাকিরা সকলেই মারা গেছেন। তার দাদা মৃত আদিলুজ্জামান বিশ্বাস যুগিপুকুরিয়া বিশ্বাস বাড়ি বসবাসকালে বাবা নাজমুজ্জামান বিশ্বাস তৈলকুপী গ্রামের দুই একর শতক জমি কিনে বসবাস শুরু করেন। সেখানে বর্তমানে তার একমাত্র চাচাতো ভাই ইমরান হোসেন, চাচি শফিকুন নাহার লিলি এবং পালিত ফুফু কোহিনুর বেগম বসবাস করেন।

    গ্রামের বাড়িটি বর্তমানে দোচালা এসবেসটর দিয়ে ছাউনি ইটের গাঁথুনি। মৌসুমীর বাবা পাকিস্তান আমলে খুলনা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষে (কেডিএ) ঠিকাদারির কাজ করাকালে খুলনা সোনাডাঙ্গা এলাকায় জমি কিনে বসবাস শুরু করেন। সোনাডাঙ্গার সেই বাড়িতেই মৌসুমী লালিতপালিত হন। এই অভিনেত্রীর নানা বাড়ি খুলনার খালিশপুর নিউজপ্রিন্ট মিল এলাকায়।

    মৌসুমীর চাচাতো ভাই ইমরান হোসেন বলেন, আমার গায়ের রঙ শ্যামলা হওয়ায় মৌসুমী আপা আমাকেø্যাক ডায়মন্ড বলে ডাকেন। আপা গ্রামে বেড়াতে আসতে চান, তবে গ্রামের বাড়িতে এলে ভক্তদের চাপ সামাল দেয়ার মতো নিরাপত্তা ব্যবস্থা না থাকায় আসতে চান না। আমরা চাই মৌসুমী আপা দুলাভাই চিত্রনায়ক ওমর সানী মাঝে মধ্যে গ্রামে এসে এলাকার লোকজনের খোঁজখবর নিক। আর্থিক দুর্দশাগ্রস্ত লোকদের সহায়তা করুক। কারণ এলাকার হতদরিদ্র জনগোষ্ঠী তাদের কাছে অনেক কিছু প্রত্যাশা করে। তাদের নিরাপত্তার প্রয়োজনে আলগা বাড়িটির প্রাচীর দেয়া বিশেষ প্রয়োজন।

    তিনি আরও বলেন, এখানে তাদের দুই একর শতক জমি আমাকে দেখাশোনা করতে হয়। ভিটেবাড়িতে পুকুরসহ আম, জাম, নারিকেল, কলা, পেয়ারা, আমলকি, করমচা, লেবু, জলপাই, কামরাঙাসহ সব ধরনের ফলের গাছ আছে। চিত্রনায়িকা মৌসুমীর চাচি শফিকুন নাহার লিলি বলেন, মৌসুমী ছোটবেলা থেকেই ঠান্ডা প্রকৃতির ছিল। গ্রাম্য পরিবেশে সে খুবই সাদামাটাভাবে চলত। তার মনে কোনো অহংকার ছিল না। সে ছোটবেলাই গ্রামের বাড়ি এসে গাছে উঠে আম পেড়ে বেড়াত। মাঝে মধ্যে দুষ্টুমি করে আখবাগান থেকে আখ চুরি করে কেটে খেত। তবে মৌসুমী চিত্রনায়িকা হবে কখনও ভাবতে পারিনি। খুলনায় যাওয়ার পর মৌসুমীর মা শামীমা খাতুনের ইচ্ছায়ই সে চিত্রজগতে পা দেয়। তিনি আরও বওেলন, ক’বছর আগে জামাতা নায়ক ওমর সানি গ্রামের বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলেন। কিন্তু লোকের ভিড়ে তিনি বেশিক্ষণ থাকতে পারেননি।

    Leave a Reply